কোরআন ও সহীহ সুন্নাহ ভিত্তিক বার্তা প্রচার করাই এই ওয়েবসাইটের মূল উদ্দেশ্য।।

এক্সিডেন্টে বা দুর্ঘটনায় দাঁত পড়ে গেলে কৃত্রিম দাঁত সংযোজন করা এবং যাদের দাঁত উঁচু নিচু সেগুলো চিকিৎসার মাধ্যমে ঠিক করা

প্রশ্ন: এক্সিডেন্টে বা দুর্ঘটনায় দাঁত পড়ে গেলে কৃত্রিম দাঁত সংযোজন করা এবং যাদের দাঁত উঁচু নিচু সেগুলো চিকিৎসার মাধ্যমে ঠিক করা যাবে কি?
▬▬▬▬▬▬▬💠💠💠▬▬▬▬▬▬▬
উত্তর: ইসলামি শরীয়তের দৃষ্টিকোণ থেকে কোন ব্যক্তির দাঁত দুর্ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্ত হলে বা জন্মগত ভাবে কোন দাঁত যদি স্বাভাবিকের তুলনায় বাঁকা বা উঁচু হয়,তাহলে তা স্বাভাবিক করার জন্য ডাক্তারের মাধ্যমে দাঁতের দোষ-ক্রটি দূর করার জন্য চিকিৎসা গ্রহণ করতে শরী‘আতে কোন বাধা নেই।(তিরমিযী,মিশকাত হা/৪৪০০ তুহফাতুল আহওয়াযী ৫ম খন্ড, হাঃ ১৭৭০ ফাতাওয়া লাজনা দায়েমা ২৪/৫৬) তবে দাঁতে কোন সমস্যা না থাকলে শুধুমাত্র সৌন্দর্য বৃদ্ধি করার জন্য দাঁতকে কেটে চেঁচে সরু করা, চিকন করা,ফাঁক তৈরি করে দাঁতকে ভিন্ন আকৃতিতে নিয়ে আসা জায়েয নেই,কেননা এতে আল্লাহ তা‘আলার সৃষ্টির পরিবর্তন রয়েছে। এছাড়া এতে ধোঁকা ও প্রতারণা রয়েছে যা সুস্পষ্ট হারাম।
.
আবদুল্লাহ ইবনু মাস্‘ঊদ (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, আল্লাহর অভিশাপ বর্ষিত হোক সে সব নারীদের উপর, যারা সৌন্দর্যের জন্য সম্মুখের দাঁত কেটে সরু করে, দাঁতের মধ্যে ফাঁক তৈরি করে, যা আল্লাহর সৃষ্টির মধ্যে পরিবর্তন আনে’ (সহীহ বুখারী, হা/৫৯৩১ মুসলিম হা/২১২৫; মিশকাত হা/৪৪৩১)। উপরোক্ত হাদীসের ব্যাখ্যায় ইমাম নববী (রাহিমাহুল্লাহ) বলেন, উক্ত হাদীসে দাঁত সরু করা বলতে যদি সৌন্দর্যকেই বুঝায়, তাহলে তা হারাম। তবে কোন সমস্যা দূর করার জন্য চিকিৎসা হিসেবে হলে ক্ষতি নেই (শারহুন নববী, ১৩ তম খণ্ড, পৃ. ১০৭)।
.
বিগত শতাব্দীতে সৌদি ‘আরবের অন্যতম শ্রেষ্ঠ মুফাসসির, মুহাদ্দিস, ফাক্বীহ ও উসূলবিদ,ফাদ্বীলাতুশ শাইখ, ইমাম মুহাম্মাদ বিন সালিহ আল-‘উসাইমীন (রাহিমাহুল্লাহ) [মৃত: ১৪২১ হি./২০০১ খ্রি.] বলেছেন,
সাজ-সজ্জা দুই প্রকার। এক. দুর্ঘটনা বা জন্মগত কারণে কোন ত্রুটি প্রকাশ পেলে তা দূর করার জন্য অপারেশন করা- এটা জায়েয। দুই. স্বাভাবিক সুন্দরকে আরো বেশী সুন্দর করার জন্য কোন পদ্ধতি অবলম্বন করা- এটা হারাম (উসাইমীন,মাজমূঊ ফাতাওয়া ওয়া রাসায়েল, ১৭তম খণ্ড, পৃ. ২২)। (আল্লাহই সবচেয়ে জ্ঞানী)।
_________________________
উপস্থাপনায়,
জুয়েল মাহমুদ সালাফি।