কোরআন ও সহীহ সুন্নাহ ভিত্তিক বার্তা প্রচার করাই হল এই ওয়েবসাইটের মূল উদ্দেশ্য।।

নেক সুরতে শয়তানের ধোঁকা

হেজাব নেকাব করে স্বামীর সাথে দৌড়িয়ে দৌড়িয়ে ফুটবল খেলছে, দৌড় প্রতিযোগিতা করছে, নৌকা ভ্রমন করছে আর সেগুলো ভিডিও করে অচিন জঙ্গলে (ফেইসবুক, ইউ টিউব–) ছেড়ে দিচ্ছে আর এর দর্শক মহল বাহ বাহ কি সুন্দর জুটি মা শা আল্লাহ বলে বলে বাহবা দিচ্ছে, আবার কিছু যুবক যুবতী এদেরকে মডেল মনে করে এদের মত কাপল হতে চাইছে এবং এদের মতই করবে বলে স্বপ্নের প্রহর গুনছে- ছিঃ, লজ্জা হওয়া উচিত, কোন দাইয়ুস ছাড়া এই কাজ কারো করা সম্ভব না, কি করে নিজের স্ত্রীর দৌড়ের দৃশ্য ভিডিও করে মানুষকে দেখাচ্ছে? রাসুল (সাঃ) যে তার স্ত্রী আয়শা (রাঃ)-এর সাথে দৌড় প্রতিযোগিতা করেছিলেন সেটা কি মানুষকে দেখিয়ে করেছিলেন? সুবহানাল্লাহ মানুষ দলিল নেয় ঠিকই কিন্তু দলিল বুঝে না, হাদিসটা দেখুন-
আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহা বলেন, “একবার আমি রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের সাথে এক অভিযানে বের হলাম, তখন আমি অল্প বয়সী ছিলাম, শরীর তেমন মোটা ছিল না। তিনি তার সাথীদেরকে বললেন, তোমরা আগে চল, ফলে তারা এগিয়ে গেল। অতঃপর তিনি আমাকে বললেন, এসো আমরা দৌঁড় প্রতিযোগিতা দেই, প্রতিযোগিতায় আমি এগিয়ে গেলাম। এরপরে আমার শরীরে মেদ বেড়ে গেল, একটু মোটা হলাম।একদা এক সফরে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আবার সাথীদেরকে বললেন, তোমরা আগে চল, ফলে তারা এগিয়ে গেল। অতঃপর আমাকে বললেন, এসো আমরা দৌড় প্রতিযোগিতা দেই, প্রতিযোগিতায় তিনি এবার এগিয়ে গেলেন। তিনি হেসে হেসে বললেন, এটা তোমার পূর্বের প্রতিযোগিতার উত্তর (অর্থাৎ তুমি আগে প্রথম হয়েছিলে, এবার আমি প্রথম হলাম, তাই মন খারাপ করোনা)। (নাসায়ী, হাদীস নং ৮৮৯৪, মুসনাদে আহমদ, হাদীস নং ২৪১১৯)
রাসুল (সাঃ)-এর স্ত্রীদের চেয়ে ভালো পর্দা করবে এমন কেও কি দুনিয়া আর আসবে? সেই তার ক্ষেত্রেই কি সাহাবীদের সামনে দৌড় প্রতিযোগিতা করেছেন নাকি তাদের সামনে চলে যেতে বলেছেন তারপর করেছেন আর আপনি সেই হাদিসটার দলিল নিয়ে নিজের বউকে খোলা বাজারে ছেড়ে দিয়েছেন, আপনাদের জন্য আমরা মুসলিম যুবকরা লজ্জিত, আপনাদের এমন ভিডিও হাজার হাজার যুবক যুবতির দমন করা যৌনতাকে উস্কে দিচ্ছে, তারাও কল্পনার রাজ্যে বিচরন করছে আর এই সুযোগগুলো শয়তান লুফে নিচ্ছে। আমরা আমাদের মা বোন স্ত্রীদের প্রতি এতটা আত্মমর্যাদাবোধ পূর্ণ যে তাদেরকে হেজাব নিকাব হোক আর যেভাবেই হোক মানুষের সামনে তুলে ধরার কথা চিন্তাও করতে পারি না, আমি বুঝতে সত্যিই অক্ষম যে নিজের পারসোনাল মোবাইল ফোনটা কত পারসোনালি ব্যাবহার করি অথচ এর চেয়েও কত বেশি গুরুত্বপূর্ণ স্ত্রীর ক্ষেত্রে আমরা এতটা জাহেল কেন? জানি যে এদের বলে লাভ নেই কারণ এদের বিখ্যাত হওয়ার পোকা ঢুকেছে মাথায় কিন্তু জান্নাতি প্রত্যাশী যুবক যুবতীদের সাবধান হওয়া উচিত।

***লেখার কৃতজ্ঞতাঃ নয়ন আহমেদ***

Share This Post
Translate In English