কোরআন ও সহীহ সুন্নাহ ভিত্তিক বার্তা প্রচার করাই হল এই ওয়েবসাইটের মূল উদ্দেশ্য।।

তাওবা এবং ইসতিগফার এর মধ্যে কি কোন পার্থক্য আছে?

আল্লাহর নিকট ক্ষমা প্রার্থনার দুটি দিক রয়েছে: (১) তাওবা এবং (২) ইসতিগফার।

তাওবা অর্থ ফিরে আসা বা প্রত্যাবর্তন করা এবং ইসতিগফার, আস্তাগফিরুল্লাহ বলার অর্থ ক্ষমা প্রার্থনা করা।
উভয়ের মধ্যে কিছু পার্থক্য রয়েছে।
ইসতিগফার বা ক্ষমা প্রার্থনা, তাওবা বা ফিরে আসার একটি অংশ।
কুরআন ও সুন্নাহর নির্দেশনার আলোকে যে কোনো পাপ থেকে তাওবার অর্থ ও শর্ত নিম্নরূপ:
(১) পাপ পরিত্যাগ করা এবং আর কখনো পাপ না করার আন্তরিক সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা
(২) পাপের জন্য অনুতপ্ত হওয়া
(৩) পাপের সাথে কোনো মানুষের বা সৃষ্টির অধিকার জড়িত থাকলে তা ফেরত দেওয়া
অথবা ক্ষমা চেয়ে নেয়া
(৪) মহান আল্লাহর কাছে ক্ষমা চাওয়া
শর্তগুলি পূরণ করে তাওবা করলে মুমিন সকল পাপের ক্ষমার নিশ্চিত আশা করতে পারেন। আল্লাহর কাছে ক্ষমা চাওয়া তাওবার একটি প্রকাশ। তবে অন্যান্য শর্তগুলো পূরণ ছাড়া শুধু ইসতিগফার বা আল্লাহর কাছে ক্ষমা চাওয়াতে পরিপূর্ণ তাওবা হয় না।

কেউ যদি শর্তগুলো পূরণ না করে বলেন: ‘আমি তাওবা করছি’ তাহলে তা অতিরিক্ত একটি মিথ্যাচার বলে গণ্য হয় এবং পাপের বোঝা বাড়ে। কারণ বান্দা বলছেন যে, আমি আল্লাহর কাছে ফিরে আসছি, অথচ কার্যত তিনি ফিরে আসছেন না। তিনি আল্লাহর নির্দেশ মত বান্দার হক্ক ফিরিয়ে দেননি এবং পুনরায় পাপ না করার দৃঢ় সিদ্ধান্ত নেন নি। কাজেই ফিরে আসার বিষয়ে তার ঘোষণাটি মিথ্যা ও পাপ বলে গণ্য।
★★???????★★
[ডঃ খোন্দকার আব্দুল্লাহ জাহাঙ্গীর-রাহে বেলায়াত-
– পৃ- ৪৯]

Share This Post
Translate In English