কোরআন ও সহীহ সুন্নাহ ভিত্তিক বার্তা প্রচার করাই এই ওয়েবসাইটের মূল উদ্দেশ্য।।

মহিলাদের মাথার চুল কাটার বিধান

ঈদ উপলক্ষে কেবল স্বামীকে দেখানোর জন্য, স্বামীর পছন্দের জন্য কী স্টাইল করে চুল কাটা যাবে???
——————————————-
নিম্নোক্ত অবস্থায় মহিলাদের মাথার চুল কাটা সর্বসম্মতিক্রমে হারাম। যথা:
? যদি কাফের-ফাসেক নারীদের সাদৃশ্য অবলম্বন করা উদ্দেশ্য হয়।
? যদি এমন স্টাইলে চুল কাটা হয় যা অবিকল পুরুষদের মত বুঝা যায়।
? যদি পর পুরুষের মাধ্যমে চুল কাটা হয় (যেমনটি বর্তমান যুগে কিছু কিছু সেলুনে ঘটে থাকে।)
? যদি স্বামীর অনুমতি ছাড়া হয়।
তাহলে তা হারাম। হারাম হওয়ার কারণও স্পষ্ট।
কিন্তু যদি স্বামীর সামনে নিজের চুলের সৌন্দর্য অবলম্বন করা উদ্দেশ্য হয় বা লম্বা চুলের কষ্ট লাঘবের উদ্দেশ্যে হয় বা এ জাতীয় গ্রহনযোগ্য উদ্দেশ্যে হয় তাহলে সঠিক মতানুযায়ী চুল ছোট করা জায়েয আছে। এ মর্মে হাদীস বর্ণিত হয়েছে যে,
كَانَ أَزْوَاجُ النَّبِيِّ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ يَأْخُذْنَ مِنْ رُءُوسِهِنَّ حَتَّى تَكُونَ كَالْوَفْرَةِ ) رواه مسلم (320) .
“রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর স্ত্রীগণ এমনভাবে তাদের মাথার চুল কাটতেন যে, তা কাঁধ থেকে একটু নিচে যেত বা কান বরাবর হত।” (সহীহ মুসলিম, হা/৩২০)
ইমাম নওবী উক্ত হাদীসের ব্যাখ্যায় বলেন:
” فيه دليل على جواز تخفيف الشعور للنساء ” انتهى. ” شرح مسلم ” (4/5)
“এতে প্রমাণিত হয় যে, নারীদের চুল কেটে হালকা করা জায়েয।” (শরহে মুসলিম ৫/৪)
আল্লামা উসাইমীন রাহ, বলেন:
এই মূহুর্তে আমার এমন কোন দলীল জানা নাই যা দ্বারা নারীদের চুল কাটা হারাম প্রমাণিত হয়। হারাম বলার মত দূর্বল; এর কোন যৌক্তিকতা নেই। মাকরূহ বলার মতটিও প্রশ্নবিদ্ধ। আর বৈধ হওয়ার মতটিই দলীল ও মূলনীতির কাছাকাছি। যেহেতু রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর ইন্তিকালের পর তার এর স্ত্রীদের চুল কাটার হাদীস সহীহ মুসলিমে বর্ণিত হয়েছে। (শাইখের বক্তব্যের সার সংক্ষেপ)
আল্লাহ সবচেয়ে ভালো জানেন।
————————————–
উত্তর প্রদানে: আব্দুল্লাহিল হাদী বিন আব্দুল জলীল
লিসান্স, মদীনা ইসলামী বিশ্ববিদ্যায়লয়, সউদী আরব।